TRENDING NOW

tech-newsbd.com

আসছালামু আলাইকুম, বন্ধুরা.
কেমন আছেন আপনারা? আশা করি ভাল আছেন।
tech-newsbd.com-এর পক্ষ থেকে আমি খাইরুল ইসলাম (হানজালা).

সবথেকে সহজ উপায়ে শিখুন ইংরেজী রচনা “Unemployment Problems in Bangladesh


Bangladesh is a small country with a large population. We know that our country is a less developed country in the world. As a result, we are constantly (প্রতিনিয়ত)  faced  (সম্মুখীন/মুখমুখি হই) various problems (অনেক সমস্যার). ‍Such as food problems, flood problems, dowry problems, population problems, etc. are some of them. The unemployment problem is one of them.

The word 'unemployment' means a person in the state (রাজ্যের এমন একজন ব্যক্তি) who is out of work. That means, when a man is jobless (কর্মহীন) we call him unemployed (বেকার). This is a curse (অভিশাপ) for any country. Thousands of people of our country are suffering (সমস্যায় ভোগছে) from it. At present, this becomes the hardest challenge (একটি জটিল চ্যালেঞ্জ) for any young man to manage a job.

Nowadays (বর্তমানে) unemployment problems have become a major (প্রধান) the problem in our country. There are many reasons for it. First is, Bangladesh is an overpopulated (অতিরিক্ত জনসংখ্যা) country. The overpopulation is the main cause (প্রধান কারণ) for this problem.This overgrowing population (এই ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা) is much larger than the job opportunities (সুযোগ). Others reasons are limited lands, Lack of proper industrialization, (সঠিক শিল্পায়ন) lack of capital and technology, lack of technical and vocational education, lack of skill also the reason for the unemployment problem. After all, there are unemployed people who are not fit for work because of their physical and mental disabilities (অক্ষমতা) .

We know this is a great issue for our country. It is not possible to solve this problem by the government alone. So, we all should come forward (এগিয়ে আসা) to solve it. I think if we take the following steps (পদক্ষেপ) it will be possible to solve this problem. Firstly, we need to establish (স্থাপন করা) industrialization (শিল্পায়ন) and we should also need to increase (বৃদ্ধি) mills, factories, and firms, etc. Secondly, we should increase the rate of literacy (শিক্ষার হার) so that people can be aware (সচেতন) of the Bad effects (খারাপ প্রভাব) of overpopulation. Thirdly, the government can be proper (সঠিক) stapes against (বিরুদ্ধে) the violations rules, (বিধি লঙ্গন নিয়ম) the laws and the corruption (দূনির্তী). Finally, we have to open vocational training (বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষন) for the young so that they can gain (অর্জন করা) practical knowledge (বাস্তবিক জ্ঞান) to start their own small business such as poultry farming, cultivating fish, growing vegetables, etc. If all these issues can be implemented, (বাস্তবায়িত করা) this problem will be largely solved.


tech-newsbd.com

আসছালামু আলাইকুম, বন্ধুরা.
কেমন আছেন আপনারা? আশা করি ভাল আছেন।
tech-newsbd.com-এর পক্ষ থেকে আমি খাইরুল ইসলাম (হানজালা).

৫. সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং (SEM)


SEM বা সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এটি ব্যাপক মার্কেটিং কৌশল যার মাধ্যমে খুব দ্রুত আপনার ব্যবসা বা ওয়েবসাটে ট্রাফিক ড্রাইভ করানো যায়। তাকে আমরা Paid Marketing Methord বলে থাকি। ধরনের মার্কেটিং ব্যবসার গঠনশৈলীর উপর ভিত্তি করে করা হয়। এক্ষেত্রে কোন PPC-Pay Per Click, CPC-Cost Per Click  অথবা CPS-Cost Per Impressions ইত্যাদি পদ্ধতি নির্বাচন করতে পারেন। SEM-বা সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং সাধারনত বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের হয়ে থাকে। যেমন-গুগুলের AdWords, ইয়াহু, বিং নেটওয়ার্ক সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। এছাড়াও SEM বিজ্ঞাপন অনুসন্ধান, মোবাইল মার্কেটিং, পুনঃবাজারজাতকরণের এর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে SEM মার্কেটিং হলো অনলাইন মার্কেটিং এর সব চেয়ে সাশ্রয়ী এবং অধিক কার্যকরী মার্কেটিং উপায়। যা কিনা আপনার রিটার্ন অন ইনভেস্টমেন্ট বাড়াতে পারে

৬. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

আমরা অনেকেই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কথা শুনেছি। ডিজিটাল মার্কেটিং এর কথা উঠলেই আমরা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কথা আমাদের মাথায় চলে আসে। একথা সত্যি যে ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি বড় অংশ জুরে রয়েছে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর প্রভাব। আপনি যখন আপনার ডিজিটাল মার্কেটিং স্কিল টা ব্যাবহার করে অন্য কারও পণ্য অথবা সেবা কমিশনের ভিত্তিতে প্রমোশন করবেন তখন সেটা হবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এমন কোন বিষয় নয় যেখানে আপনি রাতারাতি খুব বেশি কিছু করে ফেলতে পারবেন। এখানে তারাই সফল হবে যারা ধৈর্য সহকারে কাজ করে যেতে পারবে

৭. ডিজিটাল ডিসপ্লে বিজ্ঞাপন

এটি অনেকটা SEM বা সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এর মতোই মার্কেটিং ব্যবস্থা। যেখানে সম্ভাব্য শ্রোতাদের লক্ষ্য করে ডিসপ্লে বিজ্ঞাপন ফরম্যাটের বিভিন্ন টুল ব্যবহার করা হয়। যেমন- এটি টেক্সট, ইমেজ, ব্যানার, সমৃদ্ধ মিডিয়া, ইন্টারেক্টিভ বা ভিডিও ইত্যাদির মা্ধ্যমে বিজ্ঞাপনের বিষয়বস্তু তুলে ধরা হয়। যার ফলে গ্রাহকের সহজেই আগ্রহ বাড়ানো যায়। তাছড়া গ্রাহকের অবস্থানের উপর ভিত্তি করে এসকল বার্তা কাস্টমাইজ করে বিজ্ঞান প্রদর্শন করানো যায়। তবে মনে রাখবেন, ডিজিটাল ডিসপ্লে বিজ্ঞাপন তুলনামূলকভাবে ব্যয়বহুল।

৮. মোবাইল মার্কেটিং

মোবাইল ফোন দিয়ে মার্কেটিং করা এখন একটি অভিনব পদ্ধতি। সারা বিশ্বে প্রায় ২.৮৭ বিলিয়ন(2.87 billion)মানুষ র্স্মাটফোন ব্যবহার করে। তাই দিন দিন মোবাইল মার্কেটিং এর জনপ্রিয়তা বেড়ে চলছে। মোবাইল মার্কেটিং এর মধ্যে ব্লুটুথ মার্কেটিং, ইনফারেট মার্কেটিং, এসএমএস (SMS) মার্কেটিং ও এমএমএস (MMS) মার্কেটিং বেশ উল্লেখযোগ্য। তবে এগুলোর মধ্যে “SMS” মার্কেটিং বেশি গুরুত্বপূর্ণ। মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে প্রতিটি এসএমএস (SMS) হবে ১৬০ ওয়ার্ডের মধ্যে। তবে এই (SMS) মাধ্যমে আপনার গ্রাহক যে উক্ত বিষয়রে প্রতি আকৃষ্ট হয় এরকম কিছু কি-ওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে। এই মার্কেটিং পদ্ধতিটি খুবই ফ্লেক্সিবল এবং এটি টাকা তৈরীর টুল হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে

৯. ভিডিও মার্কেটিং

ভিডিও মার্কেটিং খুবই গুরুত্বর্পূণ উপায়। আপনার পণ্য বা সেবার তথ্যগুলো দিয়ে ভিডিও তৈরি করে বিভিন্ন ভিডিও শেয়ারিং সাইটে তা আপলোড করতে পারেন। ভিডিও মার্কেটিং সকল মার্কেটিং উপায়ের মধ্যে একটি স্ট্যান্ডাড মার্কেটিং। কারণ ভিডিও দেখতে সবাই পচন্দ করে। ভিডিও মার্কেটিং এর জন্য Youtube-সবথেকে বেশি জনপ্রিয়। তাছাড়াও Vimeo, Dailymotion, Blip, Wistia, Metacafe, Veoh, Megavideo  ইত্যাদি সাইটেও ভিডিও শেয়ার করতে পারেন।


১০. ফোরাম মার্কেটিং 

একজন মার্কেটারের সাফল্য একদিনে আসে না। মার্কেটিং করতে হলে আপনাকে আপনার নির্বাচিত পণ্য বা সেবা সর্ম্পকে জানতে হবে, উক্ত পণ্যে সঠিক বাজারজাতকরণ, পণ্যের গুনগত মান ও পণ্যের চাহিদা সম্পর্কে জানতে হবে। আর এ জন্য ফোরাম মার্কেটিং খুবই গুরুত্বর্পূ্ণ ভূমিকার পালন করে। ফোরাম মাকেটিং হলো বিভিন্ন ফোরাম ওযেবসাইটে গ্রাহকদের প্রশ্ন-উত্তরের মাধ্যমে মার্কেটিং করা। ফোরাম মার্কেটিং এর কিছু জনপ্রিয় সাইট হলো- yahoo answer, affilorama.com, warriorforum.com, moz.com, stmforum.com, blackhatworld.com, webmasterworld.com, affiliatefix.com, afflift.com, digitalpoint.com ইত্যাদি।


উপরে উল্লেখিত উপায়গুলি ছাড়াও আরো কিছু মার্কেটিং কৌশল রয়েছে তা হলো- পুনঃলক্ষ্য স্থির এবং পুনঃমার্কেটিং, ইন্টারেক্টিভ মার্কেটিং, ডিজিটাল মিডিয়া পরিকল্পনা বায়িং, ওয়েব এনালিটিক্স ইত্যাদি। আসলে মার্কেটিং মানেই নিত্য নতুন কৌশলের সমারোহ। এটা সবর্দা পরিবর্তনশীল। চলমান বিশ্বের গতিধারার সাথে সাথে মার্কেটিং এর কৌশলগুলোও পরিবর্তন হতে থাকবে আর এটায় স্বাভাবিক। তাই আপনাকে সবসময় আপনার কৌশলগুলোকে আপডেট করতে হবে। তাহেলই আপনি মার্কেটিং জগতে সফলতা লাভ করতে পারবেন। 

[লেখাগুলো কেমন হলো অবশ্যই Comments করে জানাবেন। তাহলে আরো ভালো কিছু লেখার উৎসাহ পাব।]
tech-newsbd.com

আসছালামু আলাইকুম, বন্ধুরা.
কেমন আছেন আপনারা? আশা করি ভাল আছেন।
tech-newsbd.com-এর পক্ষ থেকে আমি খাইরুল ইসলাম (হানজালা).

মার্কেটিং কি?
মার্কেটিং শব্দটির সাথে আমরা কম বেশি সবাই পরিচিত। এর পরিধি খুবই ব্যাপক যা হয়তো আমরা সবাই অনুধাবন করতে পারি না। আমরা একটু গভীর ভাবে আমাদের চারপাশের পরিবেশের দিকে লক্ষ্য করলে তা সহজেই বুঝতে পারি। আমরা অনেকেই হয়তো এটার সাথে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত যা হয়তো আমরা নিজেও জানি না। আমি ছোট্টা একটি উদাহরণ দিয়ে বুঝানোর চেষ্টা করছি:

“মনে করুন আপনি, আপনার পছন্দের একটি র্স্মাটফোন ক্রয় করেছেন। আপনার বন্ধু আপনাকে জিজ্ঞাস করল, র্স্মাটফোনটি কোন ব্র্যান্ডের এবং কেন এটা আপনার পছন্দ হলো। আপনি উত্তরে বললেন, আপনার র্স্মাটফোনটি স্যামস্যাং ব্র্যান্ডের এবং পছন্দের কারণটা আপনার বন্ধুর কাছে তুলে ধরলেন।”

এখানে এরি মধ্যে কিন্তু আপনি, আপনার বন্ধুর সাথে র্স্মাটফোনের ব্র্যান্ড ও পছন্দের তথ্যগুলো শেয়ার করলেন, যা মার্কেটিং এর অর্ন্তভুক্ত। আসলে মার্কেটিং এর মূল বিষয় হলো তথ্য শেয়ার করা।এটা হতে পারে কোন পণ্যে বা কোন প্রকার সেবার। মার্কেটিং একটি ইংরেজী শব্দ- যার বাংলা অর্থ্ হলো বাজারজাতকরণ। বাজারজাতকরণ বলতে বুঝায়- যখন কোন পণ্য বা সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান তাদের সেবা বা পণ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে কাংকিত ভোক্তার নিকট পৌছানো পযর্ন্ত যে সকল কা্র্য্ক্রম পরিচালনা করে থাকে তার সমষ্টিকে মার্কেটিং বলে।   
  
ডিজিটাল মার্কেটিং কি?
ডিজিটাল মার্কেটিং বলতে অনলাইন ভিত্তিক মার্কেটিংকে বুঝানো হয়ে থাকে। অর্থাৎ মার্কেটিং এর কার্যগুলো যখন ইন্টারনেটের মাধ্যমে মাধ্যমে ঘটে থাকে তখন তাকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলে। তবে আমদের অফলাইন বা বাস্তব মার্কেটিং ও ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে কিছুটা পাথর্ক্য রয়েছে :

অফলাইন বা বাস্তব মার্কেটিং:
১। কাঙ্কিত ভোক্তার নিকট সরাসরি কথা বলা যায় এবং উক্ত পণ্য বা সেবা সম্পর্কে আলোচনা করা যায।
২। সরাসরি ভোক্তার নিকট হতে মতামত গ্রহন করা যায এবং পণ্য বা সেবার মান উন্নয়ন করা যায়।
৩। পণ্য বা সেবার চাহিদা সম্পর্কে অবগত হওয়া যায় এবং সহজে ভূয়া ভোক্তা সনাক্ত করণ করা যায়।  

ডিজিটাল মার্কেটিং:
১। ডিজিটাল উপায়ে বা অনলাইনের মাধ্যমে ভোক্তার নিকট উক্ত সেবা বা পণ্য সম্পর্কে আলোচনা করা যায়।
২। সারা বিশ্বব্যাপী ভোক্তাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করা যায় এবং সেবার মান উন্নয়ন করা যায়।
৩। সর্বক্ষেত্রে ডিজিটাল মার্কেটিং এর সুবিধা ব্যাপক তবে একটি অসুবিধা হলো সহজে ভূয়া ভোক্তা সনাক্ত করণ করা যায় না।


ডিজিটাল মার্কেটিং-এর সেরা ১০টি উপায় বা কৌশল: পর্ব-১

১. কন্টেন্ট বা আর্টিকেল মার্কেটিং
কন্টেন্ট বা আটিংকেল মার্কেটিং হলো সবথেকে শক্তিশালী ও জনপ্রিয় মার্কেটিং উপায়ের মধ্যে একটি। যেকোনো বিজনেসের ক্ষেত্রে কন্টেন্ট মার্কেটিং এর উপর বিদ্যমান থাকে।তাছাড়া বেশিরভাগ মানুষ মনে করে যে, কেবল মাত্র বেশি লিড কালেক্ট করাই কন্টেন্ট মার্কেটিং এর মূল স্ট্রাটেজি। কিন্ত বাস্তবিক পক্ষে  সফল মার্কেটিং হয়ে থাকে  মান সম্মত কন্টেন্ট তৈরি করার মাধ্যমে।   কন্টেন্ট মার্কেটিং এর মাধ্যমে কোন পণ্য বা সেবা সম্পর্কে বিস্তরিত ভাবে তুলে ধরা যায়, যার ফলে টার্গেটেড কাস্ট্রমাররা সহজেই উক্ত সেবা সম্পর্কে জানতে পারে। এছাড়াও আর অনেক বিষয় থাকে যেগুলা আপনার কন্টেন্ট মার্কেটিং স্ট্রাটেজিকে নিয়ে যায় অন্য লেবেলে


২. সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO)
SEM বা সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এটি ব্যাপক মার্কেটিং কৌশল যার মাধ্যমে খুব দ্রুত আপনার ব্যবসা বা ওয়েবসাটে ট্রাফিক ড্রাইভ করানো যায়। তাকে আমরা Paid Marketing Methord বলে থাকি। ধরনের মার্কেটিং ব্যবসার গঠনশৈলীর উপর ভিত্তি করে করা হয়। এক্ষেত্রে কোন PPC-Pay Per Click, CPC-Cost Per Click  অথবা CPS-Cost Per Impressions ইত্যাদি পদ্ধতি নির্বাচন করতে পারেন। SEM-বা সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং সাধারনত বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের হয়ে থাকে। যেমন-গুগুলের AdWords, ইয়াহু, বিং নেটওয়ার্ক সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। এছাড়াও SEM বিজ্ঞাপন অনুসন্ধান, মোবাইল মার্কেটিং, পুনঃবাজারজাতকরণের এর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে SEM মার্কেটিং হলো অনলাইন মার্কেটিং এর সব চেয়ে সাশ্রয়ী এবং অধিক কার্যকরী মার্কেটিং উপায়। যা কিনা আপনার রিটার্ন অন ইনভেস্টমেন্ট বাড়াতে পারে

৩. সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

ইন্টারনেট ব্যাহারকারীদের মধ্যে কোন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেনা এমন মানুষ হয়তো খুজে পাওয়া যাবে না। মার্কেটিং-এর জন্য এর চাইতে ভাল স্থান হতে পারে না। সোশ্যাল মিডিয়াতে মার্কেটিং করতে হলে আপনাকে প্রথমে একটি এ্যাক্টিভ কমিউনিটি তৈরি করতে হবে। ফেসবুকের ক্ষেত্রে কমিউনিটি তৈরি করার জন্য গ্রুপ কিংবা পেজ তৈরি করতে পারেন।এমনি করে টুইটার, ইন্ট্রাগ্রাম, রেডিট, টামলার কিংবা লিংকেডিনে কমিউনিটি তৈরি করতে পারেন। আপনার টার্গেটকৃত ক্রেতাদের সাথে এসকল সোশ্যাল মিডিয়াগুলোতে বিভিন্ন আলোচনাতে অংশগ্রহন করতে পারেন এবং আপনার পন্যে বা সেবার বিষয়গুলো তাদের সাথে শেয়ার করে, নিয়মিত পোস্ট দিয়ে, এসএসএস করে, কমেন্টস করে আপনার মার্কেটিং র্কাযক্রম চালিয়ে যেতে পারেন। 

৪. ইমেইল মার্কেটিং

আজকের বিশ্বে সবথেকে জনপ্রিয় মার্কেটিং উপায় হলো ইমেইল মার্কেটিং। ইংরেজীতে- “Email marketing is  a blood of marketing” অর্থাৎ “ইমেইল মার্কেটিং হলো মার্কেটিং এর রক্ত” ।রক্ত ছাড়া যেমন মানুষ বেচে থাকতে পারেনা।ঠিক তেমনি  ইমেইল মার্কেটিং ছাড়া ডিজিটাল মার্কেটিং-এর কথা ভাবা যায় না। সারা বিশ্বে প্রায় ৩.৯ বিলিয়নেরও বেশি মানুষ ইমেইল ব্যবহার করে থাকে। যার মধ্যে প্রায় ৭৩% মানুষ হলো North American. ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে মুহূর্তেই আপনি আপনার পণ্য এবং সেবা কে হাজার হাজার গ্রাহকের কাছে তুলে ধরতে পরবেন এবং এতে করে আপনার পন্যটি জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি হতে থাকবে। ফলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার পণ্য অধিক পরিমানে বিক্রি হতে থাকবে


ডিজিটাল মার্কেটিং-এর সেরা ১০টি উপায় বা কৌশল- পর্ব-২

[লেখাগুলো কেমন হলো অবশ্যই Comments করে জানাবেন। তাহলে আরো ভালো কিছু লেখার উৎসাহ পাব।]